বারবার কোনঠাসা নাসিম ওসমান পরিবার, নেপথ্যে …!!!

নারায়ণগঞ্জ মেইল: নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারের অবদান অনস্বীকার্য। প্রায় তিন পুরুষ যাবত এ পরিবারের সদস্যরা নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে আসছেন। এরই ধারাবাহিকতায় তাদের চতুর্থ প্রজন্মও শুরু করেছে রাজনৈতিক পথচলা। এ পরিবারের রাজনৈতিক ইতিহাসের শুরু খান সাহেব ওসমান আলীর হাত ধরে। এরপর একেএম সামসুজ্জোহা ও একেএম নাসিম ওসমানের মাধ্যমে তা পরিপূর্ণ বিকাশ লাভ করে। এ পরিবারের তুমুল জনপ্রিয় নেতা নাসিম ওসমানের হাত ধরে রাজনৈতিক মাঠে পথচলা শুরু তারই অনুজ একেএম শামীম ওসমানের যিনি এখন পর্যন্ত সে হাল ধরে আছেন। তাদের পরবর্তী প্রজন্ম একেএম আজমেরী ওসমান ও একেএম অয়ন ওসমানও রাজনীতিতে হাতেখড়ি নিয়ে নিয়ে নিয়েছেন, যাদেরকে নেতৃত্বে দেখতে উন্মুখ হয়ে আছে নারায়ণগঞ্জবাসী।

এদিকে গত এক দশকের রাজনীতি পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ঐতিহ্যবাহী ওসমান পরিবারের নেতৃত্ব বিকাশে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখা একেএম নাসিম ওসমানের মৃত্যুর পরে আকষ্মিকভাবে পাল্টে যেতে থাকে দৃশ্যপট। নারায়ণগঞ্জের রাজনীতিতে দুর্দান্ড প্রতাপশালী নেতা একেএম নাসিম ওসমানের পরিবার থেকে নেতৃত্ব বিকশিত হওয়ার পথে পদে পদে অন্তরায় সৃষ্টি হতে থাকে। নারায়ণগঞ্জের আলোচিত ত্বকী হত্যাকান্ডে জড়ানো হয় প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমানের পুত্র আজমেরী ওসমানকে। যদিও তাদের পক্ষ থেকে এ অভিযোগ বারবার অস্বীকার করা হয়েছে। নাসিম ওসমান ঘনিষ্ঠদের দাবি, সুষ্ঠ তদন্ত হলে ত্বকী হত্যাকান্ডে জড়িত প্রকৃত আসামীদের চিহ্নিত করা সম্ভব হবে। তাছাড়া অনেকে মনে করেন প্রকৃত ঘটনা আড়াল করতে একটি মহল আজমেরী ওসমানকে ফাঁসিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে।

এছাড়াও একেএম নাসিম ওসমানের সহধর্মীনী পারভীন ওসমানকেও নেতৃত্বে আসতে বারবার বঞ্চিত করা হচ্ছে বলে মনে করেন এ পরিবারের বর্ষিয়ান অনেক শুভাকাঙ্খী যারা দীর্ঘসময় নাসিম ওসমানের সাথে রাজনীতি করেছেন। তাদের মতে, নাসিম ওসমানের যোগ্য উত্তরসুরী হিসেবে তার সহধর্মীনী পারভীন ওসমানকে তার যোগ্য সম্মান দেওয়া হয়নি। চারবারের সাংসদ নাসিম ওসমান পত্নী এখনও পর্যন্ত জাতীয় কিংবা স্থানীয় পর্যায়ে কোনো জনপ্রতিনিধি হতে পারেননি, যা বিষ্ময়ের জন্ম দিয়েছে নাসিম ওসমান অনুসারীদের মনে। বিভিন্ন ইস্যুতে মা-ছেলেকে বারবার কোনঠাসা করে রাখার চেষ্টা করছে একটি মহল- এমনটাই দাবী তাদের। তাদের মতে, সর্বশেষ নারায়ণগঞ্জের একটি স্থানীয় পত্রিকা অফিসে হামলার ঘটনায় আজমেরী ওসমানকে জড়ানো হচ্ছে, যা সেই একই মহলের চক্রান্ত।
এসব বিষয়ে জানতে প্রয়াত সাংসদ নাসিম ওসমােেনর সহধর্মীনী পারভীন ওসমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি নারায়ণগঞ্জ মেইলকে বলেন, একটি কুচক্রি মহল অতীতেও ষড়যন্ত্র করেছে, বর্তমানেও করছে। অতি সম্প্রতি নারায়ণগঞ্জের একটি স্থানীয় দৈনিক পত্রিকায় র‌্যাবের চার্জশীট তুলে ধরার কথা বলা হলেও সেখানে চার্জশীট বহির্ভূত একটি অশালীন বাক্য ব্যবহার করা হয়েছে যা খুবই মানহানীকর। এ বিষয়ে আমাদেরই প্রতিবাদ করার কথা ছিলো কিন্তু যারা পত্রিকা অফিসে গিয়েছিলো তারা আমারেকে না জানিয়েই গিয়েছিলো এবং তা ভালোবাসার টানেই। তবে সেদিন পত্রিকা অফিসে যা কিছু ঘটেছিলো তার অনেকটাই অতিরঞ্জিত করে প্রকাশ করা হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রয়াত সাংসদ এেেকএম নাসিম ওসমান ছিলেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবন বাজি রেখে লড়াই করেছেন পাক হানাদারদের বিরুদ্ধে। এরপর ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে পরিবারের সকলের সাথে হত্যা করার আগের দিন ১৪ আগস্ট তিনি পারভীন ওসমানকে বিয়ে করেন। বিয়েতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পুত্র শেখ কামাল উপস্থিত ছিলেন। ১৫ আগস্ট স্বপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হলে হত্যার প্রতিশোধ নিতে ঘরে নববধুকে ফেলে রেখেই চলে গিয়েছিলেন। তিনি ঢাকায় প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। এরপর তিনি আবার ভারতে চলে যান এবং সেখানে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করার চেষ্টা করেন। তৎকালীন কাদের বাহিনীর সেকেন্ড ইন কমান্ড হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি।

নাসিম ওসমানের মৃত্যুর পরে সংসদে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও নাসিম ওসমানের স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে আবেগে আপ্লুত হয়েছিলেন। কিন্তু সেই নাসিম ওসমানের মুত্যুর পর ধীরে ধীরে অবহেলিত হতে থাকে তার স্ত্রী পারভীন ওসমান ও পুত্র আজমেরী ওসমান। গত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য হওয়ার কথা ছিলো পারভীন ওসমানের। কিন্তু অদৃশ্য শক্তির প্রভাবে সেটাও হয়নি। নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদেও নাসিম ওসমান পত্নী পারভীন ওসমান একজন যোগ্য প্রার্থী কিন্তু এখানেও সেই অদৃশ্য শক্তির হস্তক্ষেপ বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষক থেকে শুরু করে নারায়ণগঞ্জের আপামর জনসাধারন। নেপথ্যের সেই অদৃশ্য কুশিলবদের খুঁজে বের করার দাবি তাই এখন নারায়ণগঞ্জের সর্বত্র।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

নারায়ণগঞ্জ মেইলে এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

সর্বশেষ

You cannot copy content of this page