কোথাও না থেকেও সবখানেই শামীম ওসমান!

কোথাও না থেকেও সবখানে শামীম ওসমান!

নারায়ণগঞ্জ মেইল: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কোনো কর্মকাণ্ডে অংশ নিতে পারবেন না কোনো সংসদ সদস্য। নিয়ম মেনে নির্বাচনী প্রচারণা থেকে শুরু করে সংবাদমাধ্যমে কোনো প্রকার বক্তব্য বিবৃতিও দিচ্ছেন না নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের কর্ণধার সাংসদ একেএম শামীম ওসমান। নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কোনো কর্মকাণ্ডে অংশ না নিয়ে নারায়ণগঞ্জের সর্বত্র এখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছেন এই প্রভাবশালী সংসদ সদস্য। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ থেকে শুরু করে মেয়র প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভীর মুখেও একই নাম শামীম ওসমান। তাই কোথাও না থেকেও নারায়ণগঞ্জের সর্বক্ষেত্রে এখন বিরাজমান এই রাজনীতিবিদ।

জানা যায়, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক পরিবেশ। বিশেষ করে সরকারি দল আওয়ামী লীগের বিবাদমান দুটি গ্রুপের উত্তেজনা এখন চরমে। আর এই উত্তেজনার আগুনে ঘি ঢেলে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং নাসিক নির্বাচনে নৌকার প্রধান সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর কবির নানক। নারায়ণগঞ্জ আওয়ামীলীগের কান্ডারী সাংসদ শামীম ওসমানকে ইঙ্গিত করে দেয়া নানকের বক্তব্যে সমালোচনার ঝড় বয়ে যাচ্ছে শামীম ওসমান শিবিরে। এর মাঝে নৌকার মেয়র প্রার্থী ডাক্তার সেলিনা হায়াৎ আইভী সাংসদ শামীম ওসমানকে গডফাদার বলায় উত্তেজনা বেড়েছে কয়েকগুণ।

ঘটনা সুত্রে প্রকাশ, নারায়ণগঞ্জে নৌকার বিরোধিতাকারী আওয়ামী লীগের এক সংসদ সদস্যের প্রতি হুঁশিয়ারি জানিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, ‘কেউ কোনো ষড়যন্ত্র করে রেহাই পাবেন না। জাতীয় পার্টির বন্ধুদের এই নারায়ণগঞ্জে এক ভিন্ন চরিত্র ভিন্ন চেহারা। মনে রাখবেন নৌকা মার্কা শেখ হাসিনা দিয়েছেন বলেই আপনি এমপি হইছিলেন। কি বুঝাতে পারছি? আকার ইঙ্গিতে বুঝাতে পারছি কি বলতে চাই? শেখ হাসিনা প্রার্থী দিয়েছেন আর শেখ হাসিনার সেই প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিরোধীতা করছেন। আগামীতে নৌকা পাবেন না। আমরা জীবিত থাকতে আগামী নির্বাচনে আর নৌকা তাকে পেতে দিবো না।’

শুক্রবার (৭ জানুয়ারি) বিকেলে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডে বন্দরের কবিলের মোড় এলাকায় নির্বাচনী কর্মী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রিয়, জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপসস্থিত ছিলেন।

তিনি আরও বলেন, আগামী ১৬ জানুয়ারি আপনারা নির্ধারণ করবেন আপনাদের ভাগ্য। পবিত্র আমানত আপনাদের হাতে। সেলিনা হায়াৎ আইভী এই নারায়ণগঞ্জে উড়ে এসে জুড়ে বসে নাই। তারা বাবা চুনকা ভাই বাংলাদেশের আওয়ামী লীগকে এই নারায়ণগঞ্জে সংগঠিত রেখেছেন। বঙ্গবন্ধুর হত্যার বিচারের দাবিতে তিনি দিনরাত পরিশ্রম করেছেন। সেই চুনকা ভাইয়ের মেয়ে আইভী। গত দুইবার মেয়র হিসেবে তাকে নির্বাচিত করেছিলেন আপনারা। আপনারা আপনাদের পবিত্র আমানত খেয়ানত করেননি। তাকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছিলেন। আপনাদের বিশ্বাসের সাথে বিশ্বাস ঘাতকতা সেলিনা হায়াৎ আইভী করে নাই।

এদিকে নানকের এই বক্তব্যের পরে সমালোচনার ঝড় ওঠে নারায়ণগঞ্জ আওয়ামী লীগে। কাকে হুমকি দিলেন জাহাঙ্গীর কবির নানক, কাকে নৌকা পেতে দেবেন না, দিনভর এমনই প্রশ্ন ঘুরে ফিরে এসেছে নারায়ণগঞ্জের রাজনৈতিক মহলে। সন্ধ্যার পর থেকে এটাই ছিল “টক অব দ্য সিটি”।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে অনেকে মনে করেন নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী পরিবারের সন্তান একেএম শামীম ওসমানকে নৌকা পেতে দেবেন না বলে হুঁশিয়ারি জানিয়েছেন নানক। তাছাড়া স্থানীয় জাতীয় পার্টির বিস্তর সমালোচনা করেছেন নানক।

সমালোচকদের মতে, এদিনই স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী অ্যাডভোকেট তৈমুর আলম খন্দকারের পক্ষে ভোট প্রার্থনা করেছেন বন্দর উপজেলাধীন চারটি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগণ যারা জাতীয় পার্টির রাজনীতির সাথে জড়িত। এ কারণেই কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ স্থানীয় আওয়ামী লীগ এবং জাতীয় পার্টির উপর ভীষণ ক্ষেপেছেন। আর এদেরকে ইঙ্গিত করেই আক্রমণাত্মক বক্তব্য দিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং নাসিক নির্বাচনে নৌকার প্রধান সমন্বয়ক জাহাঙ্গীর কবির নানক।

নানকের এই বক্তব্যের পরের দিন শনিবার ৮ জানুয়ারি নির্বাচনী গণসংযোগকালে নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী তৈমূর আলম খন্দকারকে উদ্দেশ করে বলেছেন, উনিতো শামীম ওসমান এবং সেলিম ওসমানের প্রার্থী। উনি বিএনপির প্রার্থী নন, স্বতন্ত্রও নন।

উনি শুক্রবার (৭জানুয়ারি) বন্দরে সেলিম ওসমানের জাতীয় পার্টির (জাপা) চারজন চেয়ারম্যানকে নিয়ে প্রচারণা চালিয়েছেন। এতেই সারা নারায়ণগঞ্জে যে গুঞ্জন ছিল ‘তৈমূর আলম খন্দকার গডফাদার শামীম ওসমানের ক্যান্ডিডেট’ তা প্রমাণ হয়েছে।

শনিবার (৮ জানুয়ারি) বন্দরের ২৪ নং ওয়ার্ডের দেউলি চৌরাপাড়া এলাকায় নির্বাচনী প্রচারে নেমে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে একথা বলেন আইভী।

তিনি বলেন, শামীম ওসমান সেলিম ওসমান দুই ভাইয়ের ক্যান্ডিডেট তৈমূর আলম খন্দকার। তিনি জনতার প্রার্থী নন, বিএনপির প্রার্থীও নন। দলের সমর্থন প্রসঙ্গে আইভী বলেন, আওয়ামী লীগে দ্বন্দ্ব স্পষ্ট হল কিনা জানি না।

সব নেতাকর্মী আমার সঙ্গে আছে। প্রতিটা ওয়ার্ড লেভেল পর্যন্ত নেতাকর্মীরা আমার পাশে আছে। একমাত্র তিনি (শামীম ওসমান) বাইরে গিয়ে তার লোকজনকে তৈমূর সাহেবের সঙ্গে দিচ্ছেন।

আওয়ামী লীগের এই মেয়র প্রার্থী আরও বলেন, হাই কমান্ড শুক্রবার সব দেখেছেন। এখানে অনুষ্ঠান হয়েছে, পত্রিকায়ও খবর এসেছে। তারা দেখেছেন এবং এ বিষয়ে দেখবেন। আমি নির্বাচন করি জনতার শক্তিতে। জনতাই আমার শক্তি, দল আমার মনোবল। এসব মিলিয়ে আমি নির্বাচন করি। আমি কোন গডফাদারের দিকে তাকিয়ে নির্বাচন করি না। আমি বলেছি শুক্রবার জাপার চেয়ারম্যানরা প্রকাশ্যে নেমেছেন। এতেই প্রমাণ হয় কারা তার (তৈমূর) সঙ্গে আছেন, কারা তাকে সাপোর্ট দিচ্ছেন।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments

নারায়ণগঞ্জ মেইলে এ প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, তথ্য, ছবি, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট বিনা অনুমতিতে ব্যবহার বেআইনি।

সর্বশেষ