Home মহানগর আওয়ামী লীগের মন্ত্রী এমপিদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা উচিত: সাখাওয়াত

আওয়ামী লীগের মন্ত্রী এমপিদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা উচিত: সাখাওয়াত

আওয়ামী লীগের মন্ত্রী এমপিদের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা উচিত: সাখাওয়াত

নারায়ণগঞ্জ মেইল: নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহবায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বলেছেন, সারা বাংলাদেশে এই সরকারের সকল অবৈধ কার্যকলাপের বিরুদ্ধে গণজাগরণ সৃষ্টি হয়েছে। সারাদেশের মানুষ যখন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জননেতা তারেক রহমানের নির্দেশে ও ডাকে সারাদেশে বিভাগে বিভাগে এই সরকারের সকল অন্যায়ের বিরুদ্ধে তাদের রায় সমাবেশে এসে রাজপথে দিয়েছে । ফলে এই দেশে একটি গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। সেই গণজোয়ার দেখে আজকে এ অবৈধ সরকার দিশেহারা হয়ে গেছে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জননেতা তারেক রহমানকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হয়ে আজকে তারা কোর্টের উপরে বন্দুক রেখে আদালতকে ব্যবহার করে জনাব তারেক রহমান ও তার সহধর্মিনী ডাক্তার জোবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে তাদের মালামাল জব্দের নির্দেশ দিয়েছেন।

 

দুদকের মামলায় আদালত কর্তৃক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও তার স্ত্রী জোবাইদা রহমানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি ও স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার প্রতিবাদে নগরীতে নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। বিক্ষোভ মিছিল শেষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা গুলো বলেন।

 

শনিবার ( ৭ জানুয়ারি ) দুপুর দুইটায় কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসাবে নগরীতে এ বিক্ষোভ মিছিল বের করে মহানগর যুবদল। বিক্ষোভ মিছিলটি খানপুর হাসপাতাল রোড় থেকে শুরু করে মেট্রো হলের মোড় হয়ে ডনচেম্বার দিয়ে প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে মিশনপাড়া হোসিয়ারি সমিতির সামনে এসে শেষ হয়।

 

এড. সাখাওয়াত হোসেন খান বলেন, এই সরকারকে বলতে চাই, এদেশে তারেক রহমানের কোন অবৈধ সম্পত্তি নেই। এদেশের সকল সম্পত্তি সকল টাকা-পয়সা এদেশের প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে এমপি মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের নেতারা কুক্ষিগত করে রেখেছে। এই কুক্ষিগত করে রেখে আজকে বাংলাদেশে একটি দুর্ভোগ্য সৃষ্টি করে রেখেছে। তারা এ দেশের লক্ষ লক্ষ কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছে। আজকে তার কারণেই দেশে ডলারের মূল্য নাই। ডলারের কারণে আজকে বাংলাদেশের মানুষের নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি। দেশের মানুষ নাবিশ্বাস হয়ে পড়েছে। কি অবস্থা থেকে বাংলাদেশের মানুষ মুক্তি চায়। সেই মুক্তির জন্য বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে যে গণজাগরণ সৃষ্টি হয়েছে আগামীতে তা গণবিস্ফোরককে সৃষ্টি হবে। এদেশে জনগণ এই সরকারকে উৎখাত করবে ইনশাআল্লাহ।

তিনি বলেন, তারা রাজনৈতিকভাবে তারেক রহমানের কাছে ব্যর্থ হইয়ে আজকে সরকার মিটিং মিছিলে পুলিশ প্রশাসনকে ব্যবহার করে জনগণকে দাবিয়ে রাখার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু আজকে তাদের সকল চেষ্টা বিফলে গেছে। তাই তারা এখন আদালতকে ব্যবহার করছে। তারা মনে করে তারেক রহমানকে সাজা দিলে, তারেক রহমানের সম্পদ বাজেয়াপ্ত করলে এদেশের গণ আন্দোলন শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু যত  ষড়যন্ত্রই করুক এদেশের গণআন্দোলন শেষ হবে না। এদেশের মানুষ তারেক রহমানের নির্দেশে আবারো রাস্তায় নেমে আসবে। সেই ৬৯ এর মত ৯০এর গণঅভ্যুত্থানের মত ২০২৩সালেও এদেশে আরও একটি গণঅভ্যুত্থান হবে। সেই গণঅভ্যুত্থানের নেতৃত্ব দিবেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জননেতা তারেক রহমান। তারেক রহমান এই দেশে বীরের বেশে ফিরে আসবেন। এদেশের মানুষদের আওয়ামী হায়নাদের হাত থেকে উদ্ধার করবেন। আজকের এই বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে বলতে চাই এই সরকারের সময় শেষ। অবিলম্বে ১০ দফা দাবি মেনে নিয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করুন। অন্যথায় পলানোর পথ ফিরে পাবেন না।

তিনি আরও বলেন, আমরা গণতান্ত্রিকভাবে আন্দোলন সংগ্রাম করতে চাই। আমরা শান্তিপূর্ণ গণ অভ্যুত্থানের মাধ্যমে এদেশের মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে চাই। আপনারা প্রশাসন হলেন প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী। আপনারা নিরপেক্ষভাবে আইনানুগ ব্যবস্থা নিবেন। সরকারের পক্ষ নিয়ে দেশের মানুষের বিপক্ষে আপনারা যাবেন না। একটি কথাই শুধু বলব আজকে এই সরকারের সময় শেষ হয়ে এসেছে। এই ২০২৩ সাল হবে এই দেশের মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার বছর। এদেশের জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠার বছর। সরকার প্রতিষ্ঠার বছর। তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি এই সরকারকে মানতে বাধ্য করা হবে। রাষ্ট্রকে সংস্কার করার জন্য বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জননেতা তারেক রহমান একের পর এক কর্মসূচি দিচ্ছেন। আর এইসব কারণেই এই অবৈধ সরকার তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দুদকের মিথ্যা মামলা সম্পদ বাজেয়াপ্ত করেছে। অবিলম্বে এ আদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি। পাশাপাশি কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করছি।

 

নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের আহ্বায়ক মমতাজ উদ্দিন মন্তু’র সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব মনিরুল ইসলাম সজলের সঞ্চালনায় বিক্ষোভ মিছিলে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খান, প্রধান বক্তা হিসাবে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব এড. আবু আল ইউসুফ খান টিপু। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সাগর প্রধান, যুগ্ম আহ্বায়ক মোয়াজ্জেম হোসেন মন্টিসহ নারায়ণগঞ্জ মহানগর যুবদল, বন্দর, সিদ্ধিরগঞ্জ, সদর থানা ও ওয়ার্ড পর্যায়ের যুবদলের নেতাকর্মীবৃন্দ।

Subscribe
Notify of
guest
0 Comments
Inline Feedbacks
View all comments